paramanuপ্রকাশকের কথা

ভারত-মার্কিন পরমাণু চুক্তি বা ১২৩ চুক্তি নিয়ে দেশজোড়া জোরালো চর্চা শুরু হয়েছে। সরকার ও মিডিয়ার পক্ষ থেকে জোরদার প্রচার করা চলছে যে, চুক্তিটি ভারতের পক্ষে অত্যন্ত লাভজনক। ওদিকে যে বামেদের সমর্থনের ওপর বিরাটভাবে নির্ভরশীল হয়ে ইউপিএ সরকার টিকে রয়েছে,তারা এই চুক্তির বিরোধিতা শুরু করেছে। তারা প্রকাশ্যে দাবি করেছে, চুক্তিটি দেশের সার্বভৌমত্বকে নষ্ট করবে। অবস্থা এমন দাঁড়িয়েছে যে, এই চুক্তির প্রশ্নে সরকারের ওপর থেকে সমর্থন তোলা হবে কি হবে না, তা নিয়ে বামেদের নিজেদের মধ্যেই বিতর্ক শুরু হযে গেছে। বেগতিক দেখে ইউপিএ সরকার বামেদের নিয়ে এক কমিটি গড়ে চুক্তিটি নিয়ে পর্যালোচনা শুরু করেছে। দু-পক্ষই অাশা প্রকাশ করেছে যে, অালাপ-অালোচনার মধ্যে দিয়েই সরকারের ওপর থেকে সংকটের মেঘ কেটে যাবে।


বিষয়টা যেহেতু পরমাণু চুক্তি সম্পর্কিত, তাই খুবই জটিল। তার ওপরে উভয়পক্ষের চাপান-উতোরে সারারণ মানুষ বিভ্রান্ত। চুক্তিটার মধ্যে সত্যিসত্যিই কী অাছে, তার প্রেক্ষাপট কী, পরমাণু শক্তি উৎপাদন সম্পর্কিত বিষয়গুলি কী, কোন ভূ-রাজনৈতিক পরিপ্রেক্ষিত থেকে চুক্তিটা করা হল, চুক্তিটার পেছনে কোন রাজনৈতিক অর্থনীতি কাজ করছে, এই চুক্তি রূপায়িত হলে দেশের সার্বভৌমত্ব কিভাবে বিপন্ন হতে পারে ইত্যাদি বিষয়গুলি সম্পর্কে একটা মোটামুটি ধারণা না থাকলে চুক্তিটা বিবেচনা করে ও চুক্তিটিকে ঘিরে চলমান রাজনৈতিক বিতর্কে হস্তক্ষেপ করার উদ্দেশ্য থেকে এই পুস্তিকাটি প্রকাশ করা হল। পুস্তিকাটিতে সুকান্ত মণ্ডলের লেখাটি ছাড়া কেন্দ্রীয় কমিটি কর্তৃক প্রকাশিত ”এম-এল অাপডেট” সম্পাদকীয় মুদ্রিত হয়েছে। অাশা করি, পুস্তিকাটি সাম্রাজ্যবাদ বিরোধিতায় অক্লান্ত বামপন্থী কর্মীদের প্রয়োজনে অাসবে।


সিপিঅাই(এমএল)


পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য কমিটি