Rajarhat

দ্বিতীয় সংস্করণের ভূমিকা


ছোট এই পুস্তিকা প্রকাশের কয়েকদিনের মধ্যেই তা শেষ হয়ে যায়। রাজারহাটের সেই অকথিত কাহিনী রাজ্যের বিভিন্ন জেলার মানুষ জানতে পেরেছেন। কিন্তু চাহিদা যে পরিমাণ তা মেটানো অামাদের পক্ষে সম্ভব ছিল না। ইতিমধ্যেই বেদিক ভিলেজ কাণ্ড রাজারহাট-নিউটাউনকে অাবার সংবাদ শিরোনামে নিয়ে অাসে। ‘উন্নয়নের’ প্রশ্নে রাজ্যের শাসক দল ও প্রধান বিরোধী দলের মধ্যে যে ‘ঐকমত্য’ গড়ে উঠেছে, তার চরম প্রকাশ দেখা গেল বেদিক ভিলেজ কাণ্ডে। উন্নয়ন-সন্ত্রাসের সেই ঐকমত্যে রাজারহাট-ভাঙড় অঞ্চলের কৃষক ও গরিব মানুষ অাজ দিশাহারা, সর্বস্বান্ত। এখন অাবার শুরু হয়েছে নতুন ‘তরজা’। কে কত কৃষক দরদী তা প্রমাণের তরজা। সবই ২০১১-র নির্বাচনকে মাথায় নিয়ে। রাজ্যবাসী তা বিলক্ষণ বুঝতে পারছেন।


পুনঃপ্রকাশের সময় অামরা প্রথম সংস্ককরণের ২/১টি তথ্য-প্রমাদ শুধরে নিয়েছি। এর সঙ্গে বেদিক ভিজেল, অলিভ গার্ডেন সহ উপনগরীর অন্তরালে যে যৌন-পর্যটন শিল্প(?) রমরমিয়ে চলছে, যা বামফ্রন্ট সরকারের নয়া ‘শিল্পোদ্যোগ’ হিসাবে বিজ্ঞাপিত হচ্ছে, তার লজ্জাজনক ছবি পাঠকের কাছে অামরা রাখলাম।


পাঠকদের মতামত ও পরামর্শ অামাদের পাথেয়। অার রাজারহাট-ভাঙড়-নিউটাউনের জমিহারা কৃষকদের লড়াই একদিন জয়যুক্ত হবে, এই বিশ্বাস অামাদের অাছে। জনগণের চোখে উন্নয়নের প্রতারণা এবং প্রতারক দলগুলোর চরিত্র যত দ্রুত উন্মোচিত হবে ততই রাজ্যের মঙ্গল।